হোম / প্লাস্টিক আধার কার্ড ছাপানোর জন্য অবৈধ সংস্থাকে ব্যক্তিগত তথ্য জানাতে নিষেধ করছে ইউ আই ডি এ আই
ভাগ করে নিন
ভিউজ্
  • অবস্থা সম্পাদনার জন্য উন্মুক্ত

প্লাস্টিক আধার কার্ড ছাপানোর জন্য অবৈধ সংস্থাকে ব্যক্তিগত তথ্য জানাতে নিষেধ করছে ইউ আই ডি এ আই

কিছু অসৎ সংস্থার চক্রান্তে পা দিয়ে ৫০ থেকে ২০০ টাকার বিনিময়ে স্মার্ট কার্ডের মত দেখতে প্লাস্টিক কার্ডে আধার তথ্য ছাপানোর বিষয়ে জনগণকে সাবধান করল ভারতীয় বিশিষ্ট পরিচয় প্রাধিকরণ (ইউ আই ডি এ আই)। এছাড়া, আধার পত্রটি বা কেটে নেওয়ার অংশটি ইন্টারনেট থেকে ডাউনলোড করে সাধারণ কাগজে ছাপিয়ে নিয়ে ব্যবহার করাটাও সম্পূর্ণভাবে বৈধ। কিছু সংস্থা আধারের ডাউনলোড করা নথিটা সাধারণ ল্যামিনেশন করে দিয়ে আরো বেশী অর্থ দাবি করছে। ইউ আই ডি এ আই – এর মহানির্দেশক ও মিশন অধিকর্তা, ডঃ অজয়ভূষণ পাণ্ডে স্পষ্টতঃ জানিয়েছেন যে আধার কার্ড বা ডাউনলোড করা আধার কার্ডটা সাধারণ কাগজে ছাপিয়ে ব্যবহার করা সম্পূর্ণভাবে বৈধ, আধার কার্ডটি ল্যামিনেট করার কোন প্রয়োজন নেই এবং টাকা দিয়ে তথাকথিত স্মার্ট আধার নেবারও কোন প্রয়োজন নেই।তিনি আরো জানান যে স্মার্ট আধার কার্ড বলে কোন বস্তু নেই।
কোন ব্যক্তির আধার কার্ড হারিয়ে গেলে, তিনি বিনামূল্যে https://eaadhaar.uidai.gov.in/থেকে কার্ডটি ডাউনলোড করে নিতে পারেন।সাদা-কালো ছাপায় ডাউনলোড করা কার্ডটি ইউ আই ডি এ আই প্রেরিত কার্ডের মতোই মর্যাদা পাবে। সেটি প্লাস্টিক কার্ডে ছাপানোর বা ল্যামিনেট করার কোন প্রয়োজন নেই। তবুও কেউ যদি তাঁর আধারের নথিটি ল্যামিনেট করাতে ইচ্ছুক হন, সেটি স্বীকৃত সাধারণ পরিষেবা কেন্দ্র বা আধারের স্থায়ী নথিভুক্তিকরণ কেন্দ্রতে বাঁধা দরে, যা তিরিশ টাকার মধ্যে, করানো যাবে। জনগণকে ল্যামিনেশন করা বা প্লাস্টিকে ছাপানো কার্ড পাবার জন্য তাঁদের ব্যক্তিগত তথ্য অস্বীকৃত সংস্থাকে জানাতে নিষেধ করছে ইউ আই ডি এ আই।
ফ্লিপকার্ট, অ্যামাজন, ই-বে’র মতো ই-কমার্স সংস্থাগুলিকেও তাদের প্রতিনিধিদের জনগণের আধার তথ্য সংগ্রহ করা থেকে বিরত করতে বলা হয়েছে। অবৈধভাবে আধার কার্ড ছাপানোর জন্য তথ্য সংগ্রহ করার অপরাধে ভারতীয় দন্ডবিধি ও ২০১৬ সালের আধার আইনের ষষ্ঠ অধ্যায় (আর্থিক ও অন্যান্য ভর্তুকি, সুযোগ-সুবিধা ও পরিষেবা) অনুযায়ী হাজতবাস সহ শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা যেতে পারে।

সূত্র: পি এই বি

Back to top