হোম / স্মার্ট আলোয় সাজতে চলেছে বিধাননগর
ভাগ করে নিন

স্মার্ট আলোয় সাজতে চলেছে বিধাননগর

কী হবে এই প্রকল্পে ? বিধাননগর পুরনিগম এলাকার ২৫ হাজার বাতিস্তম্ভে লাগানো হবে বিশেষ ধরনের এলইডি আলো৷ সময় ও পরিবেশের সঙ্গে তাল মিলিয়ে পাল্টাবে ওই আলোর ঔজ্জ্বল্য৷

স্মার্ট আলোয় সাজতে চলেছে বিধাননগর৷ ইতিমধ্যেই এর জন্য টেন্ডার ডেকেছেন পুরনিগম কর্তৃপক্ষ৷ বিদ্যুতের খরচ কমাতে এলইডি আলো লাগানোর সিদ্ধান্ত আগেই নেওয়া হয়েছিল৷ তা থেকে আরও একধাপ এগোল পুরনিগম৷

কী হবে এই প্রকল্পে ? বিধাননগর পুরনিগম এলাকার ২৫ হাজার বাতিস্তম্ভে লাগানো হবে বিশেষ ধরনের এলইডি আলো৷ সময় ও পরিবেশের সঙ্গে তাল মিলিয়ে পাল্টাবে ওই আলোর ঔজ্জ্বল্য৷ অর্থাত্ বিকেলে যদি আলো জ্বালানো হয় , তখন সেটির জোর থাকবে অনেকটাই কম৷ সন্ধ্যে নামার সঙ্গে বেড়ে যাবে আলোর উজ্জ্বলতা৷ একই ভাবে , ভোরের আলো ফুটতেই কমতে শুরু করবে আলোর জোর৷ আলোর বাড়া -কমা নিয়ন্ত্রণের জন্য থাকবে একটি ‘সেন্ট্রালাইজড কন্ট্রোল ইউনিট ’৷ যেটি নিয়ন্ত্রণ করা হবে পুরনিগমের সদর দন্তর থেকেই৷ এক পুর আধিকারিক বলেন , ‘কন্ট্রোল ইউনিটটি হবে সল্টলেকের পুরভবনে৷ সেখান থেকেই গোটা ব্যবস্থা নিয়ন্ত্রণ করা হবে৷ বিশেষ সফট্ওয়্যার তৈরি করা হবে এই ইউনিটের জন্য৷ এই ব্যবস্থার দ্বিতীয় স্তরে ফিডার বক্সে থাকবে সেন্সর ডিভাইস৷ এই ডিভাইস পরিস্থিতির বার্তা পাঠাবে ইউনিটে৷ ’প্রসঙ্গত , চলতি বছরেই বিদ্যুত্ বিলে রাশ টানতে কর্পোরেশন এলাকার ২৫ হাজার বাতিস্তম্ভ থেকে সোডিয়াম ভেপার সরিয়ে এলইডি আলো লাগানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল৷ বর্তমানে বছরে ১৬ কোটি টাকারও বেশি বিদ্যুতের বিল দিতে হয় পুরনিগমকে৷ এই খরচ কমাতেই স্মার্ট এলইডি আলো লাগানোর সিদ্ধান্ত৷ এক পুরআধিকারিকের কথায় , ‘হিসেব করে দেখা গিয়েছে এলইডি আলো ব্যবহার করলে বর্তমানে যে পরিমাণ বিদ্যুতের বিল আসছে তার ৬০ % কমে যাবে৷ ’বিধাননগরের মেয়র সব্যসাচী দত্তের কথায় , ‘বিধাননগর পুরনিগম এলাকার প্রতিটি রাস্তার আলো এলইডিতে বদলে ফেলা হবে৷ রাস্তায় কোথাও আলো খারাপ হলে স্বয়ংক্রিয় ব্যবস্থায় খবর আসবে পুরনিগমের আধিকারিকদের কাছে৷ এই আলোর ব্যবহারে বিদ্যুত্ বিলও প্রায় অর্ধেক হয়ে যাবে৷ ’কী ভাবে চলবে এই ব্যবস্থাটা ? পুরনিগম সূত্রে খবর , এই কাজটি যে পদ্ধতিতে হবে সেটিকে ইনভেস্টমেন্ট রেভিনিউ মডেল বলে জানাচ্ছেন পুরআধিকারিকরা৷ তাঁদের দাবি , যে টাকা পুরনিগম বিদ্যুত্ বিল কমিয়ে বাঁচাবে , সেই টাকা থেকেই মেটানো হবে নতুন আলো বসানোর খরচ৷ যে সংস্থা এ কাজের বরাত পাবে , সেটির সঙ্গে সে ভাবেই চুক্তি করা হবে৷ সব্যসাচীর কথায় , ‘আমরা কোনও টাকাই বিনিয়োগ করব না৷ ইচ্ছুক সংস্থারা বিড -এ অংশ নিতে পারবেন৷ আমরা বিদ্যুত্ বিল হিসেবে যে টাকা সাশ্রয় করব , প্রত্যেক মাসে তার অর্ধেক যে সংস্থা এই আলো লাগানোর বরাত পাবে , সেই সংস্থাকে দেওয়া হবে৷ ’৷

সুত্র: এই সময়
Back to top