হোম / কৃষি / কৃষি উপাদান / অজৈব উপাদান / কীটনাশক নিয়ে সতর্কতা
ভাগ করে নিন
ভিউজ্
  • অবস্থা সম্পাদনার জন্য উন্মুক্ত

কীটনাশক নিয়ে সতর্কতা

কীটনাশক ব্যবহারের জন্য যে সব প্রাথমিক সতর্কতা মেনে চলা উচিত তা এখানে আলোচনা করা হয়েছে।

কেনার সময় সতর্কতা

কী করবেন

কী করবেন না

বৈধ লাইসেন্সধারী রেজিস্টার্ড কীটনাশক বিক্রেতার থেকেই কেবল কীটনাশক/ জৈব কীটনাশক কিনবেন

ফুটপাথ থেকে কিংবা লাইসেন্সবিহীন বিক্রেতার থেকে কীটনাশক কিনবেন না

নির্দিষ্ট এলাকায় এক বার ব্যবহার করতে যতটা কীটনাশক লাগে ততটাই কিনবেন

গোটা মরশুমের জন্য একসঙ্গে বিপুল পরিমাণ কীটনাশক কিনবেন না

কীটনাশকের পাত্র বা প্যাকেটে অনুমোদিত লেবেল দেখে নেবেন

পাত্রে অনুমোদিত লেবেল ছাড়া কীটনাশক কিনবেন না

কেনার আগে ব্যাচ নং, রেজিস্ট্রেশন নং, তৈরি হওয়ার তারিখ, মেয়াদ শেষের তারিখ দেখে নেবেন

ব্যবহার করার মেয়াদ পেরিয়ে যাওয়া কীটনাশক কিনবেন না

ভালভাবে সিল করা পাত্র দেখে কীটনাশক কিনুন

কীটনাশকের পাত্রে যদি সিল না থাকে, আলগা থাকে বা চুঁইয়ে পড়ে তা হলে সেই কীটনাশক কিনবেন না

যথাযথ বিল নিয়ে কীটনাশক কিনুন। বিলে যেন ব্যাচ নং, তৈরি হওয়ার তারিখ, মেয়াদ শেষের তারিখ দেওয়া থাকে

বিল ছাড়া কখনও কিনবেন না

মজুত ও ব্যবহারে সতর্কতা

মজুতের সময়

কী করবেন

কী করবেন না

বাড়ির চত্বরের বাইরে কীটনাশক মজুত করুন

বাড়ির চত্বরে কখনও কীটনাশক রাখবেন না

যে পাত্রে কীটনাশক কিনেছেন, তাতেই রাখুন

মূল পাত্র থেকে কীটনাশক কখনও অন্য পাত্রে ঢালবেন না

কীটনাশক ও আগাছানাশক আলাদা জায়গায় রাখুন

কীটনাশক কখনও আগাছানাশকের সঙ্গে এক জায়গায় রাখবেন না

যেখানে কীটনাশক রাখা আছে, সেখানে সতর্কতা জ্ঞাপক চিহ্ন দিয়ে রাখুন

 

শিশু এবং পালিত পশুদের থেকে দূরে রাখুন কীটনাশক

কীটনাশক রাখার জায়গায় কখনও বাচ্চাদের যেতে দেবেন না

যেখানে কীটনাশক রাখা আছে, সে জায়গায় যেন সরাসরি সূর্যের আলো বা বৃষ্টির জল না যায়

সূর্যের আলো বা বৃষ্টির জল পৌঁছয়, এমন জায়গায় কীটনাশক রাখবেন না

ব্যবহারের সময়

কী করবেন

কী করবেন না

এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় যাওয়ার সময় কীটনাশক আলাদা রাখুন

খাদ্য, পশুখাদ্য ও কীটনাশক কখনও একই সঙ্গে বহন করবেন না বা কোথাও নিয়ে যাবেন না

কোনও জায়গায় বিপুল পরিমাণ কীটনাশক এক সঙ্গে ব্যবহার করতে হলে সেখানে তা নিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে সতর্কতা বজায় রাখুন

বিপুল পরিমাণ কীটনাশক কখনও মাথায়, কাঁধে বা পিঠে করে নিয়ে যাবেন না

স্প্রে দ্রবণ প্রস্তুতিতে সতর্কতা

প্রস্তুতির সময়

কী করবেন

কী করবেন না

 

স্প্রে-র পাত্রে ঢালার সময় কীটনাশক যাতে না চুঁইয়ে পড়ে তা লক্ষ রাখুন

 

যতটা বলা আছে ততটাই প্রয়োগ করুন

 

এমন কিছু করবেন না, যাতে আপনার স্বাস্থ্যের ক্ষতি হয়

সর্বদা পরিষ্কার জল ব্যবহার করুন

কখনও কাদাজল বা বদ্ধ জলাশয়ের জল ব্যবহার করবেন না

গোটা শরীরের সুরক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় পোশাক ব্যবহার করুন, যেমন, গ্লাভস, মুখোশ, টুপি, অ্যাপ্রন, ফুল প্যান্ট

সুরক্ষা পোশাক না পরে স্প্রে-র দ্রবণ তৈরি করবেন না

স্প্রে থেকে ছিটকে আসা দ্রবণ থেকে সর্বদা আপনার নাক, চোখ, কান,হাত ইত্যাদি রক্ষা করুন

কীটনাশক বা এর দ্রবণের কোনও অংশ যেন শরীরের কোথাও না পড়ে

কীটনাশক ব্যবহারের আগে পাত্রে লেখা নির্দেশাবলী মন দিয়ে পড়ুন

পাত্রের গায়ে লেখা নির্দেশাবলী পড়ার বিষয়টা কখনও অবহেলা করবেন না

যতটা প্রয়োজন, ততটাই দ্রবণ প্রস্তুত করুন

ব্যবহৃত না হওয়া দ্রবণ তৈরি করার ২৪ ঘণ্টা পর আর ব্যবহার করবেন না

দানা কীটনাশক সেই অবস্থাতেই ব্যবহার করা উচিত

দানা কীটনাশক কখনও জলে মেশাবেন না

 

স্প্রে-র পাত্র কখনও শুঁকবেন না

 

কখনও বেশি মাত্রায় কীটনাশক প্রয়োগ করবেন না, এতে গাছের স্বাস্থ্য এবং পরিবেশ ক্ষতিগ্রস্ত হবে

 

কীটনাশক ছড়ানোর সময় কিছু খাবেন না, পান করবেন না, চেবাবেন না বা ধূমপান করবেন না

যন্ত্রপাতি নির্বাচন

কী করবেন

কী করবেন না

সঠিক যন্ত্র বাছাই করুন

লিক আছে এমন কিংবা খারাপ যন্ত্র ব্যবহার করবেন না

স্প্রেয়ার-এর মুখনলের মাপ যেন ঠিক হয়

খারাপ বা ব্যবহার করতে বারণ করা হয়, স্প্রেয়ার-এর এমন মুখনল ব্যবহার করবেন না। মুখনলে কখনও মুখ দিয়ে ফুঁ দেবেন না বা পরিষ্কার করবেন না। স্প্রেয়ার-এর সঙ্গে যে টুথব্রাশ বাঁধা আছে, সেটা কাজে লাগান

কীটনাশক ও আগাছানাশকের জন্য পৃথক স্প্রে যন্ত্র ব্যবহার করুন

কীটনাশক ও আগাছানাশকের জন্য একই স্প্রেয়ার ব্যবহার করবেন না

স্প্রে দ্রবণ ব্যবহারে সতর্কতা

কীটনাশক

কী করবেন

কী করবেন না

শুধুমাত্র যেমন বলা আছে ততটা মাত্রায় এবং সেই অনুপাতে দ্রবণ ব্যবহার করুন

যেমন বলা আছে তার চেয়ে বেশি মাত্রায় এবং ঘন কীটনাশক দ্রবণ ব্যবহার করবেন না

ঠান্ডা এবং শান্ত দিনেই স্প্রে করুন

প্রবল গরম এবং ঝোড়ো বাতাস বইছে এমন দিনে স্প্রে করবেন না।

সাধারণ ভাবে সূর্যালোকিত দিনেই স্প্রে করুন

বৃষ্টির ঠিক আগে এবং বৃষ্টি হয়ে যাওয়ার পরেই স্প্রে করবেন না

প্রতিটি স্প্রে-র ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট স্প্রেয়ার ব্যবহার করুন

ব্যাটারিচালিত ইউএলভি স্প্রেয়ার-এর সাহায্যে ঘন দ্রবণ ব্যবহার করবেন না

যে দিকে বাতাস বইছে, সে দিকেই স্প্রে করুন

বাতাসের গতির বিপরীত দিকে স্প্রে করবেন না

স্প্রে হয়ে যাওয়ার পর স্প্রেয়ার ও ঝুড়ি পরিষ্কার জল ও সাবান দিয়ে পরিষ্কার করুন

ভালমতো পরিষ্কার করলেও কীটনাশক মেশানোর জন্য ব্যবহৃত পাত্র ও ঝুড়ি ঘরের অন্য কোনও কাজে ব্যবহার করবেন না

স্প্রে হয়ে যাওয়ার অব্যবহিত পরে পশু বা কর্মীরা যেন ক্ষেতে না ঢোকে তা লক্ষ রাখুন

কীটনাশক ব্যবহারের অব্যবহিত পরেই সুরক্ষা পোশাক না পরে ক্ষেতে ঢুকবেন না

স্প্রে-র পর সতর্কতা

কী করবেন

কী করবেন না

বাড়তি স্প্রে দ্রবণ কোনও বিচ্ছিন্ন এলাকায় নিয়ে গিয়ে নষ্ট করে ফেলুন

বাড়তি স্প্রে কোনও ভাবেই পুকুর বা জলের লাইনের কাছে ফেলবেন না

ব্যবহৃত খালি পাত্র পাথর বা লাঠি দিয়ে ভেঙে ফেলুন কিংবা মাটির অনেক নীচে জলের উৎস থেকে দূরে পুঁতে ফেলুন

কীটনাশকের খালি পাত্র অন্য কিছু রাখার জন্য ব্যবহার করবেন না

খাওয়া বা ধূমপানের আগে পরিষ্কার জল ও সাবান দিয়ে হাতমুখ ধুয়ে ফেলুন

জামাকাপড় না ধুয়ে এবং স্নান না করে খাবেন না বা ধূমপান করবেন না

বিষক্রিয়ার কোনও লক্ষণ দেখা গেলে প্রাথমিক চিকিৎসা করুন। রোগীকে ডাক্তারের কাছে নিয়ে যান, খালি পাত্রটিও ডাক্তারকে দেখান

বিষক্রিয়ার লক্ষণ দেখলে ডাক্তার না দেখানোর ঝুঁকি নেবেন না, কারণ এতে রোগীর জীবনমরণ সমস্যা হতে পারে

সূত্র : Directorate of Plant Protection, Quarantine and Storage

3.05833333333
মন্তব্য যোগ করুন

(ওপরের বিষয়বস্তুটি সম্পর্কে যদি আপনার কোন মন্তব্য / পরামর্শ থাকে, তাহলে দয়া করে আমাদের উদ্দেশ্যে পোস্ট করুন).

Enter the word
Back to top