হোম / শিক্ষা / বুনিয়াদি শিক্ষা / শিক্ষকদের কথা
ভাগ করে নিন
ভিউজ্
  • অবস্থা সম্পাদনার জন্য উন্মুক্ত

শিক্ষকদের কথা

শিক্ষকরা একটু মরমী আর আন্তরিক হোন
শিক্ষক শিক্ষিকাগণ আরও একটু আন্তরিক হলে প্রাথমিক শিক্ষাকে অনেক দূর এগিয়ে নিয়ে যাওয়া যায়। লিখছেন মুর্শিদাবাদের তালিবপুর উচ্চ প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক সুবিমল ঘোষ।
প্রকৃত শিক্ষক হওয়া একটা চ্যালেঞ্জ
শিক্ষার অপ্রতুল পরিস্থিতিতে শিশুদের বেড়ে ওঠা। এই রকম বিরুদ্ধ পরিবেশ পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে শিশুর কাছে প্রকৃত শিক্ষক হতে পারাটা অবশ্যই একটা চ্যালেঞ্জ। লিখছেন দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার গোপালগঞ্জ প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক অলকেশ চৌধুরী।
শিক্ষকের ভূমিকা পথপ্রদর্শকের
শিশু তার পারিপার্শ্বিক দিক ও অনুভূতির দ্বারাই শিক্ষা পায়। সেই শিক্ষাকেই পরিস্ফুট করার জন্য এক জন পথপ্রর্দশক বা শিক্ষকের প্রয়োজন হয়। লিখছেন কোচবিহারের বইশগুড়ি পূর্ব ৪র্থ পরিকল্পনা প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক মনোরঞ্জন পাল।
কিছু আন্তরিক পরামর্শ
পড়াতে গিয়ে যে সব সমস্যার সম্মুখীন হয়েছেন তা মেটাতে কিছু আন্তরিক পরামর্শ দিয়েছেন জলপাইগুড়ির সিঙ্গিমারী এস সি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক অভিজিৎ পাল।
একটি কক্ষে দু’টি শ্রেণি
প্রতিটি শ্রেণির জন্য পৃথক শ্রেণিকক্ষ থাকলে সব চেয়ে ভাল হয়। লিখছেন মালদার চিরাহুরি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক দেবদুলাল বিশ্বাস।
শিশুদের কাছে টানাই মন্ত্র
তাদের সঙ্গে আত্মিকভাবে মিশেও যাওয়ার মন্ত্র আজও কাজে লাগে। লিখছেন মুর্শিদাবাদের ৭৩ নং নশীপুর পূর্ব প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক মোহ. রাকিবুর রহমান।
নীরস পাঠদান নয়
আমরা তাদের পাঠদান করব সেই ভাবে তারা গড়ে উঠবে। নীরস পাঠদান করা যাবে না। লিখছেন দক্ষিণ ২৪ পরগনার পার্বতীপুর উত্তর মহেন্দ্রপুর অঞ্চল প্রাথমিক
কিছু ঘাটতি দায়বদ্ধতায় অতিক্রম করার প্রয়াস
অনিয়মিত উপস্থিতি, অভিভাবকদের উদাসীনতায় কিছু ঘাটতি থাকছে। কিন্তু আমাদের দায়বদ্ধতা, আগ্রহ ও নিষ্ঠায় একে অতিক্রম করার প্রয়াস নিয়েছি। লিখছেন মুর্শিদাবাদের ৩৮, রাজপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক অম্বুজাপদ রাহা।
প্রতি স্কুলে শিক্ষিকা চাই
বাচ্চারা বেশির ভাগ সময়ে মায়ের কাছে থাকে। স্কুলে এসে তারা যদি মাতৃসুলভ কোনও শিক্ষিকাকে দেখে, তাদের আগ্রহটা আরও বেশি করে বৃদ্ধি পাবে। লিখছেন দক্ষিণ ২৪ পরগনার রামপুর মথুরানগর অ : প্রা : বিদ্যালয়ের শিক্ষক রইচ উদ্দিন খান।
পর্যাপ্ত শিক্ষক ও করনিক চাই
শিক্ষার সার্বিক উন্নয়ন ঘটাতে হলে পর্যাপ্ত শিক্ষক এবং কজন করে করনিক চাই। লিখছেন মালদার দক্ষিণ রতুয়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা মিনারা খাতুন।
ন্যাভিগেশন
Back to top