হোম / শিক্ষা / জ্ঞান বিজ্ঞান / নদী-কথা / দূষিত ‘কলুষনাশিনী’ গঙ্গা
ভাগ করে নিন
ভিউজ্
  • অবস্থা সম্পাদনার জন্য উন্মুক্ত

দূষিত ‘কলুষনাশিনী’ গঙ্গা

পাঁচ-দশ হাজার বছর আগে গঙ্গা সত্যই প্রাণদায়ী কলুষনাশিনী ছিল। এতদিনকার অজস্র পাপের ভারে জর্জরিত গঙ্গা আজ মৃতপ্রায়। তার চিকিৎসা প্রয়োজন। লিখছেন বিজ্ঞান শিক্ষক সিদ্ধার্থশঙ্কর মুখোপাধ্যায়

গঙ্গার যাত্রাপথ ও জল প্রবাহ
গঙ্গার দৈর্ঘ্য ২৫২৫ কিমি; উৎসস্থল পশ্চিম হিমালয়ে ভারতের উত্তরাখণ্ড রাজ্যে। জলপ্রবাহের ক্ষমতা অনুযায়ী এটি বিশ্বের প্রথম ২০টি নদীর একটি।
গঙ্গায় জগতের আবর্জনা ও জীবাণুর আক্রমণ
বর্তমানে গঙ্গা অববাহিকার ৫০টি শহর থেকে গঙ্গায় ফেলা শুধু নাগরিক বর্জ্য তরলের পরিমাণ প্রায় ৩০০ কোটি লিটার প্রতি দিন।
বিসর্জনের অত্যাচার ও দূষণ
৩০ দিনের ব্যবধানে চার চারটি বড় উৎসব গভীর সংকটে ফেলছে গঙ্গাকে।
দূষিত জলে ব্যাকটেরিয়ার জিন পরিবর্তন
গঙ্গার জল এখন এমন অবস্থায় চলে এসেছে যে তার মধ্যে সৃষ্টি হচ্ছে নতুন এক প্রজাতির জিন।
নদীপাড়ের ট্যানারি
সকল নিরপেক্ষ পর্যবেক্ষক একমত যে রাসায়নিক বা শিল্পদূষণের অর্ধেকের বেশি আসে চামড়া কারখানা থেকে।
গঙ্গাদূষণের ভয়াবহ পরিণাম
গঙ্গার তীরে বসবাসকারী মানুষের মধ্যে নদী দূষণের কারণে প্রতি বছর ১০ লাখ মানুষ মারা যায়।
গঙ্গা অ্যাকশন প্ল্যান
১৯৮৬ সালে শুরু হয় ‘গঙ্গা অ্যাকশন প্ল্যান’-এর যাত্রা। জনতা ও সেচ্ছাসেবী বেসরকারী সমীক্ষক সংস্থার মতে এর নিট ফল শূন্য।
ন্যাভিগেশন
Back to top