ভাগ করে নিন
ভিউজ্
  • অবস্থা সম্পাদনার জন্য উন্মুক্ত

ব্যান্ডেল চার্চ

ভাস্কো দা গামা ভারতের পশ্চিম উপকূলে পা রাখার প্রায় এক শতাব্দী পর পর্তুগিজরা বাংলায় প্রবেশ করা শুরু করে। দ্রুত হুগলি নদীর তীর ধরে বসতি স্থাপন শুরু হয় এবং আজ যেখানে হুগলি জেলা, সেটা পর্তুগিজদের প্রধান কেন্দ্রে পরিণত হয়। ১৫৯৯ সালে হুগলি নদীর তীরে একটি গির্জা স্থাপিত হয়, সেটাই পশ্চিমবঙ্গের প্রথম গির্জা। এটিই ব্যান্ডেল চার্চ।

কিন্তু পর্তুগিজদের সুখের দিন দীর্ঘস্থায়ী হয়নি। ১৬৩২ সালে মুগল সম্রাট শাহজাহান পর্তুগিজদের বসতিতে আক্রমণ করেন। সেখানে একটি ছোট দুর্গও ছিল। পর্তুগিজরা চূড়ান্ত ভাবে পরাজিত হয় এবং তাদের গির্জা ও কেল্লা ধ্বংস হয়ে যায়। বহু পর্তুগিজ এবং স্থানীয় খ্রিস্টানদের হত্যা করা হয়। ফাদার জোয়ান ডেক্রুজকে বন্দি করে আগ্রায় নিয়ে যাওয়া হয়, সেখানে তাঁকে একটি মত্ত হাতির সামনে ফেলে দেওয়া হয়। কিন্তু হাতিটি তাঁকে পায়ে পিষে ফেলার বদলে শুঁড়ে করে তুলে পিঠে বসিয়ে নেয়।

এই ঘটনায় সম্রাট এতই চমৎকৃত হন যে, তিনি ফাদার এবং তার অনুগামীদের মুক্তি তো দেনই পাশাপাশি নতুন করে গির্জা তৈরির জন্য করমুক্ত জমি দান করেন। আশ্চর্য ঘটনার এখানেই শেষ নয়, যুদ্ধের সময় মাতা মেরির একটি মূর্তি হুগলি নদীতে ভেসে যাচ্ছিল, সেটা উদ্ধার করতে এক স্থানীয় খ্রিস্টান জলে ঝাঁপ দিয়েছিলেন, কিন্তু সেটিকে আর উদ্ধার করা যায়নি। নতুন করে গির্জা প্রতিষ্ঠিত হওয়ার সময় সেই মূর্তিটি হঠাৎ পাড়ে ভেসে ওঠে। মূর্তিটির নাম দেওয়া হয়, ‘আওয়ার লেডি অফ দ্য হ্যাপি ভয়েজ’।

গির্জা উদ্বোধনের উদযাপন যখন চলছে, তখন একটি বিপর্যস্ত পর্তুগিজ জাহাজের পাল চোখে পড়ে সবার। জানা যায়, কিছু দিন আগেই জাহাজটি প্রবল ঝড়ের মুখে পড়েছিল। ভাগ্যক্রমে নাবিকরা জীবিত রয়েছে। ঝড়ের সময় জাহাজের ক্যাপ্টেন প্রতিজ্ঞা করেছিলেন, তিনি প্রথম যে গির্জাটিকে দেখবেন, সেখানে জাহাজের প্রধান মাস্তুলটি দান করবেন। ক্যাপ্টেন তাঁর কথা রেখেছিলেন। সেই মাস্তুলটি এখনও গির্জা প্রাঙ্গণে রাখা আছে। মাস্তুলকে পর্তুগিজ ভাষায় ব্যান্ডেল বলা হয়। সেই থেকেই এই গির্জার নাম ব্যান্ডেল চার্চ। পরের সপ্তাহান্তেই তোমরা বাবা মায়ের সঙ্গে এটা দেখা আসতে পারো।

গির্জাটিতে একটি বিশাল ঘড়িসহ স্তম্ভ রয়েছে। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে এতে প্রচুর পরিবর্তন করা হয়েছে। পুরনো স্থাপত্যের কিছুই প্রায় অবশিষ্ট নেই। হুগলি নদীর তীরে একটি বেঁকানো দরজা দিয়ে গির্জায় ঢুকতে হয়। দরজার ওপরে নৌকোয় মাতা মেরি ও শিশু যিশুর মূর্তি রয়েছে। গির্জার ব্যালকনি থেকে হগলি নদীর ওপরের জুবিলি ব্রিজটি দেখা যায়।

হাওড়া থেকে ট্রেনে ব্যান্ডেলআসতে সময় লাগে ১ ঘণ্টা। স্টেশন থেকে রিকশায় পৌঁছে যাবে ব্যান্ডেল চার্চে।

3.0
মন্তব্য যোগ করুন

(ওপরের বিষয়বস্তুটি সম্পর্কে যদি আপনার কোন মন্তব্য / পরামর্শ থাকে, তাহলে দয়া করে আমাদের উদ্দেশ্যে পোস্ট করুন).

Enter the word
ন্যাভিগেশন
Back to top