হোম / শিক্ষা / জ্ঞান বিজ্ঞান / বিজ্ঞান বিভাগ / বিশ্বব্রহ্মান্ডের বিবর্তনের গল্প
ভাগ করে নিন
ভিউজ্
  • অবস্থা সম্পাদনার জন্য উন্মুক্ত

বিশ্বব্রহ্মান্ডের বিবর্তনের গল্প

বিশ্বব্রহ্মান্ডের বিবর্তনের কাহিনি বলা হয়েছে এখানে।

সৃষ্টির গল্প নয়, বিবর্তনের ইতিহাস
আমাদের আলোচনার বিষয়বস্তু বিশ্বব্রহ্মান্ডের সৃষ্টির গল্প নয়, বরং এর বিবর্তনের ইতিহাস।
‘বিগ ব্যাং মডেল’-এর ভিত
বিগ ব্যাং’ মডেলটি দাঁড়িয়ে আছে পদার্থবিদ্যার দু’টি মূল স্তম্ভের ওপর। একটি হলো আইনস্টাইনের সাধারণ আপেক্ষিকতাবাদ ও অন্য‌টি হলো সৃষ্টিতত্ত্বের নীতি।
মহাজাগতিক ধ্রুবক
আইনস্টাইন তাঁর সমীকরণে জোর করে একটি অতিরিক্ত রাশি যোগ করলেন যাতে কেবল স্থির মহাবিশ্বের ধারণাটাই পাওয়া যায়। এই অতিরিক্ত রাশিটিকে বা মহাজাগতিক ধ্রুবক বলা হয়।
হাবলের সূত্র ও মহাবিশ্বের সম্প্রসারণের স্বপক্ষে প্রমাণ
এডুইন হাব্‌ল পরীক্ষা করে দেখলেন একটা ছায়াপথ আমাদের থেকে যত বেশি দূরে, তার সরে যাওয়ার গতিবেগও ততই বেশি। তার মানে আমাদের মহাবিশ্ব প্রকৃতপক্ষেই সম্প্রসারিত হচ্ছে।
কিছু ভ্রান্ত ধারণা
এখানে কিছু ভুল ধারণার ব্যাখ্যা দেওয়া হয়েছে।
‘বিগ ব্যাং’ : শুরুর মুহূর্ত থেকে আজকের বিশ্ব সময়-রেখা
তরান্বিত গতিতে ‘স্পেস’-এর অতিদ্রুত সম্প্রসারণ চলছিল এবং এই সম্প্রসারণের ফলেই অতি উচ্চ-শক্তির কণা ও প্রতিকণার সৃষ্টি হতে শুরু করে বিশ্ব সৃষ্টির ঐ আদি অবস্থাতে।
পরীক্ষাগারে মহাবিশ্বের আদিতম অবস্থায় ফেরার পরীক্ষা
ইউরোপের সার্ন (CERN বা European Organization for Nuclear Research) গবেষণাগারে এক বিরাট পরীক্ষা চলছে লার্জ হ্যাড্রন কোলাইডার নামক এক যন্ত্রে।
‘বিগ ব্যাং’-এর প্রথম ধাপে হাল্কা মৌলেরই আধিক্য‌
‘বিগ ব্যাং’-এর প্রথম ধাপে কেবল মাত্র হাল্কা মৌলেরই আধিক্য‌ ছিল এবং সমস্ত ভারী মৌল সংশ্লেষ হয়েছে অনেক পরে।
‘বিগ ব্যাং’-এর সপক্ষে আরো প্রমাণ
‘বিগ ব্যাং’-এর সপক্ষে আরো প্রমাণ হল কসমিক মাইক্রোওয়েভ ব্যাকগ্রাউন্ড রেডিয়েশন।
শেষ নাহি যে শেষ কথা কে বলবে
এত কিছু জিনিস সম্পর্কে ভবিষ্যৎবাণী করলেও ‘‘বিগ ব্য‌াং’’ মডেলটি কিন্তু আদৌ সম্পূর্ণ নয়।
ন্যাভিগেশন
Back to top