হোম / প্রভাবসম্পন্ন খবর / মিথেন গ্যাসের সমস্যা সমাধানের একটি পথ
ভাগ করে নিন

মিথেন গ্যাসের সমস্যা সমাধানের একটি পথ

কলকাতায় বর্জ্য থেকে যে মিথেন গ্যাস নির্গত হয়, এই প্রকল্প সেই সমস্যা সমাধানেরও পথ দেখাচ্ছে।

বর্তমানে ১৮টি কর্পোরেট সংস্থা এই ধরনের কাজের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে। প্রায় পাঁচ হাজার কেজি বর্জ্য‌ তাদের সহযোগিতায় রিসাইকেল হয়ে কাজে লাগছে। শুধু কর্পোরেট সংস্থাই নয়, পুরসভাও এই কাজে সাহায্য‌ের হাত বাড়িয়ে দিয়েছে। লিমা সফরের ফলে মৃন্ময়ীদের সামনে নতুন সুযোগ খুলে যাওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। এখানে বিল অ্য‌ান্ড মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশন, রকফেলার ফাউন্ডেশনের মতো সমমনস্ক সংস্থাগুলির সঙ্গে তাঁদের যোগাযোগ হবে। ‘ট্র্য‌াশ টু ক্য‌াশ’ প্রকল্পে সাহায্য‌ের হাত বাড়িয়ে দিয়ে আবহাওয়া অভিযোজনের বিষয়ে তাঁরা প্রতিশ্রুত কাজ এগিয়ে নিয়ে যাবেন এমনটাই অনুমান।

‘‘কলকাতায় প্রতিদিন ৫ হাজার টনেরও বেশি কঠিন বর্জ্য‌ নির্গত হয়। মাটিতে এই বর্জ্য‌ ফেলায় মাটির নীচের জল দূষিত হওয়ার ও মিথেন গ্য‌াস নির্গত হওয়ার বিপদ থেকে যায়। এই মিথেন গ্য‌াস আবহাওয়ার পরিমণ্ডলে তাপকে ধরে রাখার ব্য‌াপারে কার্বন ডাইঅক্সাইডের চেয়ে ২৫ গুণ বেশি কাজ করে। আমরা দেখিয়েছি, ‘ট্র্য‌াশ টু ক্য‌াশ’ প্রকল্প এই সমস্য‌ার সমাধানে উপযোগী ভূমিকা গ্রহণ করতে পারে। এই গোষ্ঠীভিত্তিক বর্জ্য‌ ব্য‌বস্থাপনের ব্য‌বসায়ী মডেলের মাধ্য‌মে খোলা বর্জ্য‌ জনিত দূষণ সমস্য‌ার কিছুটা সমাধান হতে পারে।’’ –বললেন অমৃতা চট্টোপাধ্য‌ায়। গোড়া থেকে ইনিই এই প্রকল্পের দেখভাল করার কাজ করছেন।

‘ট্র্য‌াশ টু ক্য‌াশ’ সহ বাকি ১১টি লাইটহাউস অ্য‌াক্টিভিটিস সম্পর্কে ইউনাইটেড নেশনস ফ্রেমওয়ার্ক কনভেনশন অন ক্লাইমেট চেঞ্জের এক্সিকিউটিভ সেক্রেটারি ক্রিশ্চিয়ানা ফিগুয়েরার মন্তব্য‌, ‘‘এই প্রকল্পগুলি গোষ্ঠী, শহর, ব্য‌বসা, সরকার -- সব পক্ষকেই নিম্ন-কার্বনজনিত ঐতিহ্য‌ময় ভবিষ্য‌তের পথে যেতে সাহায্য‌ করছে।’’

গ্লোবসিন ক্রিস্টালের ডিরেক্টর পবন চুরিয়াল ‘ট্র্য‌াশ টু ক্য‌াশ’ প্রকল্পের লিমা যাত্রা নিয়ে উচ্ছ্বসিত। তাঁর মন্তব্য‌, ‘‘এই প্রকল্পের অংশীদার হতে পেরে আমরা গর্বিত। কাগজ-কুড়োনেরা এর ফলে অনেক ভালো জীবনযাত্রার সুযোগ পাচ্ছে। কিন্তু শুধু তার জন্যই নয়, এই উদ্য‌োগের ফলে পরিবেশেরও উন্নতি ঘটছে।’’

সূত্র : দ্য টাইমস অফ ইন্ডিয়া, ১২।০৪।১৪

Back to top