হোম / সমাজ কল্যাণ / প্রকল্প ও কর্মসূচি / গীতাঞ্জলী এবং আমার ঠিকানা
ভাগ করে নিন
ভিউজ্
  • অবস্থা সম্পাদনার জন্য উন্মুক্ত

গীতাঞ্জলী এবং আমার ঠিকানা

অর্থনৈতিকভাবে দুর্বল দরিদ্র মানুষদের জন্য বিনামূল্যে যথাযথ বাসস্থান নির্মাণের উদ্দেশ্যে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের আবাসন বিভাগ জোর দিয়েছে।

অর্থনৈতিকভাবে দুর্বল দরিদ্র মানুষদের জন্য বিনামূল্যে যথাযথ বাসস্থান নির্মাণের উদ্দেশ্যে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের আবাসন বিভাগ জোর দিয়েছে। গ্রামাঞ্চলে এই পরিকল্প রুপায়নে্র দায়িত্ব রাজ্য সরকারের ছয়টি বিভাগের ওপর ন্যস্ত হয়েছে। সেগুলি হলঃ ক) সংখ্যালঘু বিষয়ক বিভাগ এবং মাদ্রাসা শিক্ষণ বিভাগ, খ) অনগ্রসর শ্রেণী উন্নয়ন বিভাগ, গ) মৎস্য বিভাগ, ঘ) বন বিভাগ, ঙ) সুন্দরবন বিষয়ক বিভাগ এবং চ) পশ্চিমাঞ্চল উন্নয়ন বিষয়ক বিভাগ এবং পুর এলাকা বহির্ভূত আংশিক শহরাঞ্চলে পঞ্চায়েত এবং গ্রামোন্নয়ন বিভাগ পশ্চিমবঙ্গ আবাসন পর্ষদ এবং পশ্চিমবঙ্গ হিডকো গীতাঞ্জলী ও আমার ঠিকানা পরিকল্প কার্যকর হয়েছে।এই দুটি পরিকল্পের মূল উদ্দেশ্য সমাজের অর্থনৈতিক দুর্বল দরিদ্র মানুষদের যথাযথ বাসস্থান নির্মাণ এবং নির্মাণ কর্মীদের জন্য অতিরিক্ত কর্মসংস্থান। গ্রামাঞ্চলে উপকৃত ব্যক্তীর নিজস্ব জমিতে বাড়ী তৈরি করে দেওয়ার খরচ রাজ্যের  নির্ভর করে

বিভিন্ন অঞ্চলের মৃত্তিকা ও আবহাওয়া ওপরঃ

ক) সমতল এলাকার  গ্রামাঞ্চলে বসবাসকারী উপকৃত ব্যক্তীর ক্ষেত্রে পরিবার পিছু ১.৬৭ লক্ষ টাকা

খ) সুন্দরবন চিহ্নিত এলাকার বসবাসকারী দের ক্ষেত্রে পরিবার পিছু ১.৯৪ লক্ষ টাকা

গ) দার্জিলিং জেলার পার্বত্য অঞ্চল চিহ্নিত এলাকার বসবাসকারী দের ক্ষেত্রে পরিবার পিছু ২.৫১ লক্ষ টাকা

ঘ) জলপাইগুড়ি জেলার আরণ্যক গ্রামগুলিতে বসবাসকারী দের ক্ষেত্রে পরিবার পিছু ৩.০০ লক্ষ টাকা

পুর-এলাকা বহির্ভূত শহরাঞ্চলে এ ধরনের বাড়ী তৈরির খরচ হলঃ

ক) উপকৃতের নিজস্ব জমিতে একতলা গৃহ নির্মাণের  পরিবার পিছু ১.৬৭ লক্ষ টাকা

খ) সরকারি জমিতে বা দায়িত্বপ্রাপ্ত সরকারি এজেন্সির জমিতে নির্মিত বহুতল আবাসনের প্রত্যেক ফ্ল্যাটের খরচ ৩.৩০ লক্ষ টাকা।

পঞ্চায়েত ও গ্রামোন্নয়ন বিভাগ সমতল অঞ্চলে ‘আমার ঠিকানা' পরিকল্পের ইউনিট কস্ট নির্ধারণ করেছে ৭০,০০০ টাকা এবং পাহাড়, দুর্গম এবং উপকূল অঞ্চলে ৭৫,০০০ টাকা।

শুরুতে অনুমোদিত টাকার অর্ধেক দেওয়া হয়। ঐ টাকার সদ্ব্যবহারের শংসাপত্র এবং নির্মাণ কার্যের বাস্তব প্রগতি পত্র জমা দিলে বাকি টাকা দেওয়া হয়।

সরকারের মূল উদ্দেশ্য ‘সবার মাথার উপরে ছাদ' এর ব্যবস্থা করা। সরকার বিশেষকরে রাজ্যে যুগ যুগ ধরে বঞ্চিত ও সন্তপ্ত মানুষদের আবাসন সমস্যা সমাধানে জোর দিয়েছে। সংখ্যালঘূ সম্প্রদায়, জেলে এবং সুন্দরবন ও পশ্চিমাঞ্চল এলাকার অর্থনৈতিকভাবে দুর্বল ব্যক্তিদের জন্য পূর্ণভর্তুকি দিয়ে বাসস্থান নির্মাণ সরকারের মূল লক্ষ।এই পরিকল্প বাস্তবায়ন করতে গিয়ে সংশ্লিষ্ট বিভাগ কার্যকরী তদারকি এবং দ্রুত গোটা রাজ্যে সমান গতিতে বাস্তবায়নের সমস্যার সম্মুখীন হয়। ১লা এপ্রিল, ২০১৪, থেকে ‘আমার ঠিকানা' পরিকল্পকে ‘গীতাঞ্জলী'র সঙ্গে মিশিয়ে এখন শুধু ‘গীতাঞ্জলী' নাম দেওয়া হয়েছে। এই পরিকল্পটি এখন জেলাশাসকদের মাধ্যমে কার্যকরী হবে। অর্থবিভাগের অনুমতি অনুযায়ী সমতলভূমিতে পরিবারপিছু ৭০,০০০ টাকা এবং পাহাড়, দুর্গম এবং সুন্দরবন অঞ্চলে পরিবার পিছু ৭৫,০০০ টাকা দেওয়া হবে।

উৎস: পশ্চিমবঙ্গ সরকার

3.13043478261
মন্তব্য যোগ করুন

(ওপরের বিষয়বস্তুটি সম্পর্কে যদি আপনার কোন মন্তব্য / পরামর্শ থাকে, তাহলে দয়া করে আমাদের উদ্দেশ্যে পোস্ট করুন).

Enter the word
ন্যাভিগেশন
Back to top